শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মাংস ও শর্করা জাতীয় পানীয় অনুরাগীদের জন্য দুঃসংবাদ। সম্প্রতি এক গবেষণায় জানা গিয়েছে, প্রক্রিয়াজাত মাংস ও শর্করাবৎ পানীয় থেকে শরীরে বাসা বাঁধতে পারে দুরারোগ্য ও জটিল পেটের সমস্যা৷ ছাড় পায়নি, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই থেকে শুরু করে মেয়োনিজও। দীর্ঘ দিন এই খাবারগুলি খেলে, অচিরেই শরীরে দেখা দিতে পারে পেটের সমস্যা, ডায়াবiটিসের উপসর্গ, আর্থ্রাইটিস এমনকী হৃদস্পন্দন জনিত নানান সমস্যা।

নতুন এই গবেষণা জানিয়েছে প্রক্রিয়াজাত বিভিন্ন খাদ্য ও প্রাণীর শরীর থেকে উৎপন্ন বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে থাকে নানা প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া। এই ব্যাকটেরিয়া দীর্ঘ দিন ধরে মানুষের শরীরে প্রবেশ করলে তা মানবদেহে নানান দুরারোগ্য রোগের সঞ্চার করে থাকে। ‘ফার্মিকিউটস ( Firmicutes SP)’ এবং ‘ রুমিনোকোকুস (Ruminococcus SP)’ এই দুই ধরণের ব্যাকটেরিয়াই মূলত প্রাণীজাত যে প্রোটিন তা থেকে মানবদেহে প্রবেশ করে৷ এই ধরনের ব্যাকটেরিয়ার মানবশরীরে দীর্ঘ দিন সঞ্চালন স্ফীতিজনিত বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করে থাকে।

তবে বিজ্ঞানীদের মতে এই স্ফীতিজনিত সমস্যার সমাধান রয়েছে উদ্ভিদজাত বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য, তেলালো মাছ ও রেড ওয়াইনে। উদ্ভিদজাত ফলমূল-শাক-সবজিতে থাকে ফ্যাইক্যালিব্যাকটেরিয়াম (Faecalibacterium SP) যা শরীরে সার্বিক ভাবে ফ্যাটি আ্যাসিডের জন্ম দিয়ে থাকে। এই ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরে স্ফীতিজনিত সমস্যার অ্যান্টিডোট হিসেবে কাজ করতে পারে, ও শরীরের স্ফীতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। একই রকম ভাবে কফিতে থাকা অস্কিলিব্যাকটর (Oscillibacter SP) ও দুগ্ধজাত বিভিন্ন দ্রব্যে ল্যাক্টোব্যাসিলাস (Lactobacillus) ও বিফিডোব্যাকটেরিয়াম (Bifidobacterium) শরীরের স্ফীতি কমাতে ও নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে থাকে।

তবে মাংস অথবা মিষ্টি পানীয় ছাড়াও আরও বিভিন্ন দ্রব্যেই স্ফীতিবৃদ্ধিকারী ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি পাওয়া যায়। গমজাত পাঁউরুটি, সবুজ কড়াইশুঁটি, মাছ, বাদাম ও কাবলিছোলায় বিভিন্ন সুবিধাবাদী ব্যাকটেরিয়া খুঁজে পাওয়া যায়৷ এই ব্যাক্টেরিয়াগুলি শরীরে প্রবেশ করে ও শারীরিক যে কোনও রকম অসুখ বৃদ্ধি করে। এই অসুখগুলির মধ্যে শারীরিক স্ফীতিজনিত সমস্যা, হার্টের সমস্যা, আর্থ্রাইটিস প্রভৃতি নানা অসুখ খুঁজে পাওয়া যায়। প্রক্রিয়াজাত মাংস, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, মেয়োনিজ ও অন্যান্য নানা দ্রব্যে উপস্থিত ‘ক্লস্ট্রিডিয়াম বোলাটি (Clostridium Bolatae)’, ‘কপ্রোব্যাসিলাস (Coprobacillus)’ ও ‘ল্যাকনোস্পাইরেসি (Lachnospiraceae)’ শরীরে এসে মেশে। শরীরে ফাইবারের অনুপস্থিতিতে এই সব ব্যাকটেরিয়া অন্ত্রের মিউকাস লেভেল বন্ধ করে দেয় ও অন্ত্রের নানা ক্ষয়ক্ষতি সাধন করে থাকে৷ দীর্ঘ দিন ধরে এই ধরনের খাবার খেলে শরীরে ইনফ্লেমেটরি বাওয়েল ডিসিজ (Inflamatory Bowel Disease), কোলাইটিস (Colitis) ও ক্রোহন ডিসিজ (Crohn Disease) এর উপসর্গ দেখা দিতে পারে। সম্প্রতি ১৪২৫ জনকে নিয়ে করা একটি সার্ভের রিপোর্টে BMJ এর বিজ্ঞানীরা এই সব পরিপ্রেক্ষিতে এই তিনটি রোগের যথেষ্ট উপস্থিতি লক্ষ্য করেছেন।

অনলাইনে ডক্টর ও টেলিমেডিসিন সেবা এখন খুব সহজ

যেকোন ডাক্তারের অ্যাপয়েন্ট পেতে গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন 

স্বাস্থ্য বিডি মোবাইল অ্যাপ  অথবা ভিজিট করুন  স্বাস্থ্য বিডি ওয়েবসাইট এবং বিস্তারিত জানতে কল করুন +8801400-040404 নম্বরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *