শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, উচ্চরক্তচাপ এবং হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যাক্তিরা কভিড-১৯ থেকে জটিলতায় পড়তে পারেন। চলমান পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় প্রবীণরা যারা কিনা করোনারি হার্ট ডিজিজ বা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন, তারা করোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি বেশি যা আরো জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে পারে।

আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন (এএইচএ) অনুসারে প্রায় পঞ্চাশ শতাংশ আমেরিকান উচ্চ রক্তচাপের শিকার। এএইচএ একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে শরীরের অন্যান্য সমস্যা গুলো সু-নিয়ন্ত্রিত রাখা এবং সুস্বাস্থ্য বজায় রাখা বর্তমান পরিস্থিতিতে খুব জরুরী।

চীনের উহান থেকে প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায় যে কভিড-১৯ এ যাদের হৃদরোগ রয়েছে তাদের মধ্যে ১০.৫% মৃত্যুর হার, ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের মধ্যে ৭.৩%, শ্বাসপ্রশ্বাসের রোগীদের মধ্যে ৬.৩% এবংউচ্চ রক্তচাপের ক্ষেত্রে ৬% মৃত্যুর হার।

কিছু লোক ভুলবশত মনে করে উচ্চ রক্তচাপ বা হৃদরোগের ওষুধগুলো করোনা সক্রমনের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। তাই এএইচএ, আমেরিকার হার্ট ফেইলর সোসাইটি এবং আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলজি সম্প্রতি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। নির্দেশিকাতে বলা হয়েছে কোন অবস্থাতেই উচ্চরক্তচাপ, হার্টফেইলর বা হৃদরোগের জন্য চিকিৎসকের দেয়া ওষুধগ্রহণ বন্ধ করা যাবেনা। এই ওষুধগুলি কভিড-১৯ এর সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায় না বরং হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক এবং ক্রমবর্ধমান হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করার ক্ষেত্রে রক্তচাপের মাত্রা বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

নির্দেশিকাতে যোগ করা হয়েছে কভিড-১৯ এ আক্রান্ত হৃদরোগীদের ওষুধ গুলি বন্ধ বা যুক্ত করার আগে তাদের স্বাস্থ্য সেবা সরবরাহকারী দ্বারা মূল্যায়ন করা উচিত। কিছু ওভার-দ্যা- কাউন্টার (ওটিসি) ওষুধ ও এর পরিপূরক গুলি রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে পারে যেমন ননস্টেরয়েড অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি (এনএসএআইড) ব্যথার ওষুধ, নেপ্রোক্সেন এবং আইবুপ্রোফেন এবং ডিকনজেস্ট্যান্টগুলি। হার্টের সমস্যা যুক্ত লোকদের এ ওষুধ গুলির ব্যবহার এড়ানো বা সীমাবদ্ধ করা উচিত, বিশেষত যদি তাদের অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ থাকে।

এএইচএ পরামর্শ দেয়, মানসিক স্বাস্থ্য, কর্টিকোস্টেরয়েডস, জন্মনিয়ন্ত্রণের বড়ি, ইমিউনোসাপ্রেসেন্ট এবং কিছু ক্যান্সারের ওষুধ ব্যাবহারের পূর্বে ওষুধ গ্রহণকারী লোকদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা উচিত। অত্যধিক অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইন রক্তচাপকে বাড়িয়ে তুলতে পারে, এবং উচ্চ রক্তচাপ যুক্ত লোকদের এগুলো বাদ দেয়া অথবা সীমাবদ্ধ করা উচিত। কিছু তথাকথিত প্রাকৃতিক পরিপূরক এবং ঘরোয়া প্রতিকার এর পদ্ধতি গুলো নিরাপদ নাও হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বিভিন্ন ভেষজ ও এর পরিপূরক রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে পারে বলে ধারণা দিয়েছে এই সংস্থাটি।

উচ্চ রক্তচাপ বা হৃদরোগীদের যেহেতু দীর্ঘদিন অনেকগুলো ওষুধ খেতে হয় তাই এই সংকটময় অবস্থায় ওষুধগুলোর সরবরাহের বিষয়টিতেও গুরুত্ব দিয়েছে সংস্থাটি। এমন ব্যক্তিদের জন্য সহজ হতে পারে অনলাইন অর্ডার যারা তাদের ওষুধ পেতে বাড়ি ছেড়ে যেতে পারেনা বা চায় না। চিকিৎসা সংক্রান্ত অ্যাপয়েন্টমেন্ট গুলি রাখা ও গুরুত্বপূর্ণ। কিছু ডাক্তার এমন প্রতিকূল পরিস্থিতিতে যখন সম্ভব হয় তখন ভার্চুয়াল সেবা ও দিয়ে থাকেন।

অনলাইনে ডক্টর ও টেলিমেডিসিন সেবা এখন খুব সহজ

যেকোন ডাক্তারের অ্যাপয়েন্ট পেতে গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন স্বাস্থ্য বিডি মোবাইল অ্যাপ অথবা ভিজিট করুন https://shasthobd.com/ এবং বিস্তারিত জানতে কল করুন +8801400-040404 নম্বরে।

সূত্র : webmd.com
Link : https://www.webmd.com/lung/news/20200402/heart-patients-need-to-be-wary-of-coronavirus

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *